বৈষম্যমূলক প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা শিশুদের সৃজনশীলতা বিকাশের অন্তরায়

0
233

 

মুহাম্মদ আনোয়ার শাহাদাত হোসেন : শিক্ষা মানুষের মৌলিক ও জন্মগত অধিকার। যে কোন মানুষের বুদ্ধি ভিত্তিক বিকাশের জন্য শিক্ষা একটি অপরিহার্য বিষয়। ১৯৭১ সালে দেশ স্বাধীন হওয়ার পর থেকে এ যাবৎ শিক্ষা ব্যবস্থা পুনর্বিন্যাসের জন্য বিভিন্ন শিক্ষা কমিশন গঠন করা হলেও কোনো কমিশনই পুরোপুরি বাস্তবায়িত হয়নি এবং শিক্ষাক্ষেত্রে কাঙ্খিত কোন সংস্কার হয়নি। স্বাধীনতার পর থেকে অদ্যাবধি দেশে শিক্ষাব্যবস্থায় পরীক্ষায় পাশের হার বৃদ্ধি পেলেও শিক্ষার গুনগত মানের তেমন উন্নতি ঘটেনি বরং বিভিন্ন ক্ষেত্রে ব্যপকহারে অবনতি ঘটেছে। বিশেষ করে বাংলাদেশে বিরাজমান শিশু শিক্ষার অবস্থা নাজুক এবং বৈষম্যমূলক। মানব জীবনের প্রাথমিক স্তর হলো শিশুকাল। এই শিশুকালই হলো প্রকৃত শিক্ষার সোপান।  জাতি সংঘের শিশু সনদের আওতায় ১৮ বছরের নিচে সকলকে শিশু হিসেবে ধরা হয়। এদেশের মোট জনসংখ্যার বিশাল অংশ হলো এই শিশু। এদের উপর নির্ভর করছে দেশের আগামী। শিশুর সুন্দর ও উপযুক্ত পরিচর্যা এবং প্রকৃত শিক্ষার সুযোগ নিশ্চিত করতে না পারলে ভবিষ্যতে তাদেরকে যোগ্য নাগরিক হিসেবে তাদের গড়ে তোলা দূরহ হয়ে উঠবে। আজকের শিশুকে আগামী দিনের উপযুক্ত এবং চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সক্ষম নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হলে তাদেরকে আধুনিক ও যুগোপযোগী শিক্ষা দিয়ে সৃজনশীলতা বিকাশের পথকে সাবলীল ও সহজ করতে হবে নতুবা উন্নত ও দক্ষ মানব সম্পদ তৈরিতে আমরা দিন দিন পিছিয়ে পড়বো। ১৯২৪ সালে প্রতিষ্ঠিত  ‘ঈড়হাবহঃরড়হ ড়ভ ষবধমঁব ড়ভ ঘধঃরড়হ’ যাকে আমরা জেনেভা ঘোষণা বলি সেখানে বলা হয়েছে- ”মানব জগতে সর্বোত্তম যা কিছু দেয়ার আছে তা শিশুরাই পাওয়ার যোগ্য”। কিন্তু আমরা কি শিশুকে তার ন্যায্য পাওনা দিচ্ছি ? শিক্ষা জন্মগত ও মৌলিক অধিকার হওয়া সত্বেও আমরা শিশুদের জন্য উপযুক্ত ও সার্বজনীন শিক্ষা নিশ্চিত করতে পারিনি বরং শিক্ষা ক্ষেত্রে তৈরি করা হয়েছে বিভিন্ন বিভাজন যার ফলে জীবনের শুরুতেই শিশুদেরকে বিরাট বৈষম্যের শিকার হতে হচ্ছে। যেখানে সকল শিশু সমভাবে শিক্ষার সুযোগ পাওয়ার কথা সেখানে বাংলাদেশে প্রাথমিক স্তরে বর্তমানে ১০-১২ ধরনের শিক্ষা ব্যবস্থা চালু রয়েছে। যেমন- সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, নিবন্ধনকৃত বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, নিবন্ধনহীন বেসরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়, কমিউনিটি বিদ্যালয়, এনজিও পরিচালিত বিদ্যালয়, এবতেদায়ী মাদ্রাসা, স্যটেলাইট স্কুল ও কিন্ডারগার্টেন ইত্যাদি।  প্রাথমিক পর্যায়ে এতো ধরনের শিক্ষা ব্যবস্থা-ই বলে দেয় আমাদের শিক্ষার হযবরল অবস্থা। দেশে একটি একক এবং সমন্বিত শিক্ষা পদ্ধতির পরিবর্তে দ্বিধাবিভক্ত ও বৈষম্যমূলক ব্যবস্থা আমাদের মেধা ও সৃজনশীলতাকে অঙ্কুরে বিনষ্ট করে দিচ্ছে। প্রাথমিক শিক্ষা হলো একজন শিশুর বুনিয়াদি শিক্ষা যা শিশুর ভবিষ্যৎ জীবনের গতিমুখ নির্ধারণ করে দেয়ার পথকে সুগম করে। প্রত্যেক শিশুর এই বুনিয়াদি শিক্ষা সমভাবে নিশ্চিত করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। কিন্তু বাংলাদেশে প্রচলিত এত ধরনের প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা আজকের শিশুকে শিক্ষা জীবনের শুরুতেই ঠেলে দিচ্ছে বৈষম্যের সমুদ্রে। উল্লেখিত প্রতিটি শিক্ষা ব্যবস্থা একটির সাথে আরেকটির রয়েছে ব্যপক ব্যবধান। আবার একই ধরনের শিক্ষা ব্যবস্থায়ও নগর এবং গ্রামের প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে গুনগত ফারাক। অর্থনৈতিক বৈষম্যের উপর ভিত্তি করে গড়ে উঠেছে আমাদের দেশের এই বৈষম্যমূলক শিক্ষা ব্যবস্থা। ধনাঢ্য শ্রেণির জন্য কিন্ডারগার্টেন স্কুল বা বিভিন্ন ইংরেজী মাধ্যম স্কুল আর গরীব ও প্রান্তিক শ্রেণির জন্য গড়ে উঠেছে সরকারী-বেসরকারী প্রাথমিক স্কুল থেকে শুরু করে অন্যান্য স্কুল গুলো। ধনীক শ্রেণি তাদের সন্তানদের কিন্ডারগার্টেন বা অন্যান্য ইংরেজী মিডিয়াম স্কুলে ভর্তি করিয়ে তাদের উন্নত শিক্ষার ভিত্তি মজবুত নিশ্চিত করছে আর গ্রামের সাধারণ জনসাধারণ তাদের সন্তানদের উপযুক্ত প্রাথমিক শিক্ষা দিতে ব্যর্থ হচ্ছে। এমতাবস্থায়, সমাজের নি¤œ-মধ্যবিত্ত, নি¤œবিত্ত এবং প্রান্তিক শ্রেণির শ্রমজীবি মানুষের সন্তানরা প্রাথমিক স্তরেই শিক্ষার মানের দিক থেকে পিছিয়ে পড়ছে যা তাদের উন্নততর ভবিষ্যতের স্বপ্নকে ¤øান করে দিচ্ছে। বর্তমানে প্রাথমিক শিক্ষার গুনগত মান অনেকাংশে পরিবর্তন হলেও দেশের সব শিশুদেরকে একীভুত শিক্ষা ব্যবস্থায় নিয়ে আসার মতো ব্যবস্থা সরকার গড়ে তুলতে পারেনি। তাছাড়াও গ্রামীন অবকাঠামোগত অবস্থা এবং যোগাযোগ ব্যবস্থার অসুবিধার কারনে অপেক্ষাকৃত গ্রামীন জনপদের স্কুলগুলোতে ভালো শিক্ষকগণ অবস্থান করতে চাননা। তাঁরা সব সময় থানা/উপজেলা সদরে কিংবা তার আশেপাশে স্কুলগুলোতে থাকতে পছন্দ করেন আর তাতে একশ্রেণির দূর্নীতিবাজ শিক্ষা অফিসার বা উর্ধ্বতন কতৃপক্ষ মোটা অংকের লেনদেনের বিনিময়ে এসব শিক্ষকদেরকে তাদের পছন্দানুযায়ী স্কুল গুলোতে বদলীর ব্যবস্থা করে দেন। ফলে প্রত্যন্ত অঞ্চলের স্কুলগুলোতে পড়া লেখার মান দিন দিন ক্রমাবনতি হতে থাকে। তার সাথে রয়েছে প্রাইভেট টিউশানির দৌরাতœ্য। যদিও সরকার এখন সব প্রকারের প্রাইভেট টিউশানি নিষিদ্ধ করেছেন। তবুও নামে বেনামে বিভিন্ন উপায়ে এই টিউশানি চলছে। দরিদ্র পরিবারের শিশুরা কখনো একজন ভালো শিক্ষকের কাছে প্রাইভেট পড়ার সামর্থ রাখেনা আর শিক্ষকগণ টিউশানির লোভে কিংবা ছাত্র-ছাত্রীর তুলনায় শিক্ষকের অপ্রতুলতা, শ্রেণিকক্ষের অভাব সহ নানান ধরনের সীমাবদ্ধতার কারনে যথাযথ পাঠদান সম্ভব হয়ে উঠেনা ফলে গ্রামের দরিদ্র পরিবারের শিশুটি বঞ্চিত হয় উপযুক্ত শিক্ষা পাওয়ার সুযোগ থেকে। যদিও বর্তমান সরকার কর্তৃক প্রণীত শিক্ষানীতি ২০১০ এর দ্বিতীয় অধ্যায়ে প্রাক প্রাথমিক ও প্রাথমিক শিক্ষার ক্ষেত্রে গুরুত্ব দেয়া সহ বিরাজমান বৈষম্য রোধ, ঝরে পড়া সমাস্যার সমাধান, পরিবেশ, শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত ৩০:১, শিক্ষক নিয়োগ, পদোন্নতি, প্রশিক্ষণসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দিক এবং একই সাথে সৃজনশীল পদ্ধতি ধাপে ধাপে চালু করার কথা বলা হয়েছে। কিন্তু আমাদের জিডিপিতে শিক্ষা খাতের বরাদ্দের দিকে তাকালে বুঝা যায় আমরা শিক্ষা ব্যবস্থাকে উন্নত ও যুগোপযোগী করতে কতটুকু আন্তরিক! জিডিপিতে শিক্ষা খাতে বরাদ্দের দিক  দিয়ে বিশ্বের ১৬১টি দেশের মধ্যে আমাদের অবস্থান ১৫৫তম। জাতীয় আয়ের মাত্র ২.১ শতাংশ শিক্ষার জন্য বরাদ্দ। এই বরাদ্দ দিয়ে উন্নততর, আধুনিক ও যুগোপযোগী শিক্ষার ব্যবস্থা করা মোটেও সম্ভব নয়।

প্রাথমিক শিক্ষাকে একক মান সম্পন্ন, যুগোপযোগী এবং আধুনিক শিক্ষায় রূপান্তরিত করার সাংবিধানিক অঙ্গীকারকে (সংবিধানের ১৭ নং ধারা) প্রাতিষ্ঠিানিক রূপ দিতে হবে। সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মানোন্নয়ন হলেও এখনো কাঙ্খিত লক্ষে পৌঁছুতে অনেক বাকী। ভৌত অবকাঠামো সহ নানান ধরনের সীমাবদ্ধতার কারনে এখনো সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলো দেশের সকল শ্রেণির শিশুদের জন্য উপযুক্ত পাঠদান নিশ্চিত করতে পারেনি। প্রশিক্ষিত শিক্ষক থাকলেও তা এখনো ছাত্র-ছাত্রীর আনুপাতিক হারের তুলনায় অপ্রতুল। অন্যান্য যে ধরনের প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা রয়েছে তার অবস্থা আরো নাজুক। বিশেষ করে এবতেদায়ী মাদ্রাসা ও কওমী মাদ্রাসাগুলোতে বিরাজমান প্রাথমিক শিক্ষা ব্যবস্থা ও দেশে প্রচলিত শিক্ষা ব্যবস্থার সাথে রয়েছে বিস্তর ফারাক। অপরদিকে দেশে ৭০ হাজারের অধিক কিন্ডারগার্টেনের জন্য সরকারের তেমন কোন নীতিমালা না থাকায় প্রত্যেকে নিজের মতো করে প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করছে এবং পাঠ্যসূচী নির্ধারণ করছে। এরকম বৈষম্যমূলক প্রাথমিক শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢেলে সাজাতে হবে এবং নিশ্চিত করতে হবে সকল শিশুদের সমমান সম্পন্ন শিক্ষা পাওয়ার অধিকার।

 

লেখক:- কলামিষ্ট ও মানবাধিকার কর্মী

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here