ভাল মানুষগুলোকে মূল্যায়ণ না করলে, কি করে সোনার মানুষ সৃষ্টি হবে?

0
100

এম.এ আক্কাছ নূরী:

লোক দেখানো ত্রাণ বিতরণের ভীড়ে বাংলাদেশে এটা এক অন্যরকম ভালোবাসার দৃশ্য। ছবিটি চট্টগ্রামের বাকলিয়া এলাকার। ফ্রি সবজির বাজার। প্রয়োজনীয় সবজি নিবেন টাকা দিতে হবে না। এখানে কেউ আপনার ছবি তুলবে না।

আপনি কে, কি নিচ্ছেন সেটাও কেউ তাকিয়ে দেখবে না। দেশের এই দুঃসময়ে ফ্রিতে সবজি নিয়ে যাওয়ার এই সুযোগটি করে দিয়েছেন চট্টগ্রামের পরিচিতমুখ যুবলীগ নেতা আরশাদুল আলম বাচ্চু। গত দুই দিন ধরে ভ্রাম্যমান এই সবজির বাজার বিভিন্ন এলাকায় ছুটে যাচ্ছে মানুষের দ্বারে। এটা মানবতার অসাধারণ এক দৃষ্টান্ত।

চোর জনপ্রতিনিধিগুলো, যদি এ মানসিকায় ফিরে আসে, তাহলে দেশের একজন মানুষও না খেয়ে কখনও কষ্ট পাবে না। অতএব, ভালকাজ যেই করবে, তার কাজের মূল্যায়ণ করা চাই। না হলে, কোনদিন ভাল মানুষ সৃষ্টি হবে না। চোরগুলো ভদ্র মানুষ সেজে আজীবনই জনসাধরণের প্রতিনিধিত্ব করবে।

সমাজের ভদ্রবেশী, কোর্ট-টাই, সুন্দর সুন্দর পাঞ্জাবী-শেরোয়ানী পড়ুয়া এ চোর বাটপার জনপ্রতিনিধি, চেয়ারম্যান, মেম্বার ও কাউন্সিলরদের তিরস্কার করুন। আর যুব লীগনেতা আরশাদু্ল আলম বাচ্চুদের মতো মানুষগুলোকে হৃদয়ের সবটুকু ভালবাসা উজার করে দিয়ে, এ সব মহৎ কাজে উৎসাহিত করুন। দেখবেন, সত্যি সত্যিই এ দেশে ভালনেতা ও ভাল মানুষে ভরপুর হবে। সোনার দেশে সোনার মানুষগুলোই শোভা পাবে। অন্যদিকে চোরগুলো মুখ লোকাবে। এভাবে নির্লজ্জের মতো ছবি দেখাবে না।

পরিশেষে আমার তরফ থেকে আরশাদুল আলম বাচ্চু ভাইয়ের প্রতি রইল অশেষ ভালবাসা, শুভকামনা এবং নিরন্তর অভিনন্দন। আল্লাহপাক তাকে সত্যিকারের দেশ ও মানুষের খাদিম হিসেবে কবুল করুন এবং এ ভাইয়েরাই বেঁচে থাক যুগযুগান্তরে।
বিঃদ্রঃ ব্যক্তিগতভাবে আমি বাচ্চু ভাইকে চিনি না। মূলত কারো ভালকিছু দেখলেই তার কথাগুলো তুলে ধরতে কখনও কার্পণ্যবোধ করি না। আসলে আমি কখনও নিজের জন্য লিখি না, দেশ ও সমাজের মানুষগুলোর জন্যই সব সময় খুব সহজ ভাষায় কিছু লিখার চেষ্টা করি।
লিখক: প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক, pnewsbd.com

চট্টগ্রাম ব্যুরো চীফ: দৈনিক বর্তমান কথা