নগরীতে ছিনতাইয়ের পর ফ্লাইওভার থেকে ফেলে দেয়া যুবক গার্ডারে আটকে গিয়ে প্রাণে রক্ষা

0
110

রুমানা আক্তার:

চট্টগ্রামে মালামাল লুটের পর এক যুবককে হত্যার জন্য হাত-পাসহ পুরো শরীর তার দিয়ে বেঁধে ফ্লাইওভার থেকে ফেলে দিয়েছিলো দুর্বৃত্তরা। কিন্তু ভাগ্য সহায়, ওই যুবক আটকে যায় ফ্লাইওভারের গার্ডারে। কয়েক ঘণ্টা আটকে থাকার পর মঙ্গলবার (০২ জুন) রাতে ফায়ার সার্ভিসের দু’ঘণ্টা চেষ্টার পর ওই যুবক প্রাণে রক্ষা পায়। তবে এক পুলিশের সদস্যের চোখে না পড়লে হয়তো ওই যুবক ওখানেই মারা পড়তো। জনমানব শুন্য ফ্লাইওভারে মালামাল লুটের পর তাকে হত্যা করতেই ফেলে দেয়া হয়েছিলো বলে ধারণা করছে পুলিশ।

সিএমপি ট্রাফিক বিভাগের সহকারী উপ-পরিদর্শক শামীম মিয়া ঘটনার বর্ণনা দিয়ে জানান, দায়িত্ব পালন শেষে গার্ডারের নিচে রাখা সাবান পানি দিয়ে হাত ধুতে গিয়ে গোঙানির শব্দ শুনতে পান। পরে গোঙানির শব্দ অনুসন্ধান করে দেখতে গিয়ে ফ্লাইওভারের উপরে উঠে যান তিনি। ফ্লাইওভারের কিছু অংশ উঠার পর তিনি গোঙানির শব্দের উৎস দেখে হতভম্ব হয়ে পড়েন। তিনি দেখেন হাত-পা এবং পুরো শরীর তার দিয়ে বাঁধা এক যুবক গার্ডারের সঙ্গে আটকে আছে।
তাৎক্ষণিকভাবে এএসআই শামীম মিয়া পুরো বিষয়টি তার ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করে আটকে পড়া যুবককে উদ্ধারের জন্য ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেন।

শামীম মিয়া আরো জানান, রাত হয়ে যাওয়ায় এমনিতেই ফ্লাইওভারে যানবাহন চলাচল তেমন ছিলো না। গোঙানির শব্দ না শুনলে হয়তো রাতভর এই যুবককে সেখানেই আটকে থাকতে হতো।

ফায়ার সার্ভিস আগ্রাবাদ স্টেশনের সহকারী স্টেশন ম্যানেজার কবীর হোসেন জানান, পুলিশের কাছ থেকে তথ্য পাওয়ার পর তার নেতৃত্বে ফায়ার সার্ভিসের একটি টিম ঘটনাস্থলে ছুটে আসে। সন্ধ্যার পর থেকেই নানাভাবে চেষ্টা চলছিলো ওই যুবককে সেখান থেকে নামিয়ে আনতে। কিন্তু কোনোভাবেই তার কাছে পৌঁছানো যাচ্ছিলো না। আর হাত-পা এবং শরীর বাঁধা থাকায় নিজ থেকেও সে কিছু করতে পারছিলো না। পরে বিশাল আকৃতির লোডার দিয়ে এক ঘণ্টা চেষ্টার পর দমকল কর্মীরা তার কাছে পৌঁছাতে পারে।

দু’জন দুর্বৃত্ত তার কাছ থেকে টাকাসহ অন্যান্য মালামাল ছিনিয়ে নিয়ে তার দিয়ে বেঁধে সেখানে ফেলে গিয়েছিলো বলে উদ্ধার হওয়ার পর ফায়ার সার্ভিসকে জানিয়েছে যুবকটি। তবে কতক্ষণ পর্যন্ত সে গাডারে আটকে ছিলো তা বলতে পারেনি। উদ্ধারের পর পরই ফায়ার সার্ভিসের অ্যাম্বুলেন্স করেই তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। দীর্ঘক্ষণ ধরে তার দিয়ে বাঁধা থাকায় তার শরীরে রক্ত চলাচলে বাধাগ্রস্ত হয়। বর্তমানে ওই যুবককে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।