চট্টগ্রামে মেয়াদোত্তীর্ণ সিএনজি অটোরিকশা নষ্ট করা হচ্ছে

0
37

পিনিউজ ডেস্ক:

চট্টগ্রামে মেয়াদোত্তীর্ণ প্রায় ৪ হাজার সিএনজি অটোরিকশা নষ্ট করার কাজ শুরু হয়েছে।

চট্টগ্রাম বিআরটিএ কার্যালয়ে সোমবার থেকে শুরু হওয়া এ কার্যক্রমে ২০০৪ সালে তৈরি করা সিএনজি অটোরিকশাগুলো নষ্ট করা হচ্ছে।

চট্টগ্রাম বিআরটিএ’র উপ-পরিচালক (প্রকৌশল) মো. শহীদুল্লাহ জানান, চট্টগ্রামে প্রায় ১৩ হাজার সিএনজিচালিত অটোরিকশা চলাচলের অনুমতি আছে।

২০০১ সাল থেকে ২০০৩ সালে যেসব অটো রিকশা রাস্তায় নামানো হয়েছিল, সেগুলো নষ্ট করে তার পরিবর্তে নতুন অটো রিকশা সড়কে নামানো হয়েছে।

এ দফায় ২০০৪ এবং পরবর্তীতে ২০০৫ সালের অটোরিকশাগুলো নষ্ট করা হবে।

সোমবার প্রথম দিনে ১০০টির মতো অটোরিকশা নষ্ট করা হয়েছে বলে জানান শহীদুল্লাহ।

বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) থেকে পাওয়া তথ্যে জানা যায়, ২০০১-২০০৩ সালে প্রস্তুত হওয়া প্রায় সাড়ে আট হাজার সিএনজি অটো রিকশা নষ্ট করা হয়েছিল ২০১৮ সালে। ২০০৪ সালে প্রস্তুত মোট তিন হাজার ৯৪৪টি অটোরিকশা নষ্ট করা হবে এ দফায়।

যেসব অটোরিকশা মালিক তাদের মেয়াদোত্তীর্ণ অটোরিকশা নষ্ট করাবেন, সেটার পরিবর্তে নতুনটির জন্য নিবন্ধন নিতে পারবে।

সিএনজি অটো রিকশা নষ্ট করার সময় গাড়ির মালিককে অটোরিকশার মূল নিবন্ধনসহ সংশ্লিষ্ট কাগজপত্র জমা দিতে হয় বিআরটিএ কার্যালয়ে।

শহীদুল্লাহ বলেন, নষ্ট করার পর ওই সিএনজি অটোরিকশার নিবন্ধন নম্বর সার্ভার থেকে মুছে দেওয়া হবে। পরবর্তীতে নষ্ট করা গাড়ির মালিক নতুন অটোরিকশা কিনলে সেটির জন্য নতুন নম্বরের আবেদন করবেন।

তিনি বলেন, “করোনাকালীন সময়ে আমাদের এ কার্যক্রম ধীরগতি রাখা হয়েছে। সময় নিয়ে আমরা নষ্ট করার এ কাজ পরিচালনা করব। পরবর্তীতে করোনাকালীন পরিস্থিতি বিবেচনা করে বাকীগুলো নষ্ট করার কাজে হাত দেওয়া হবে।”

দেশে সিএনজি অটো রিকশা চলাচল শুরুর পর বিআরটিএ থেকে সেগুলোর চলাচলের সময়সীমা (ইকোনমিক লাইফ) ধরা হয়েছিল নয় বছর। পরে মালিকদের দাবির মুখে তিন দফায় আরও ছয় বছর বাড়িয়ে ১৫ বছর করা হয়।