চট্টগ্রামে ৪১ ইউনিয়নে ভোটগ্রহন শুরু

0
102

পি নিউজ ডেস্ক :  ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের ষষ্ঠ ও শেষ ধাপে চট্টগ্রামের ৪১ ইউনিয়ন পরিষদে ভোটগ্রহন শুরু হয়েছে। শনিবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত একটানা ভোটগ্রহণ চলবে।
ভোটের আগে বিভিন্ন স্থানে সহিংসতার কারণে রয়েছে উদ্বেগ-উৎকণ্ঠাও। নির্বাচন নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন প্রার্থী ও ভোটাররা।  নির্বাচন ঘিরে যে কোন ধরনের অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে সতর্ক রয়েছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।
শুক্রবার ভোটের আগের দিন সন্ধ্যায় আনোয়ারা উপজেলার বৈরাগ ইউনিয়নে নির্বাচনী সহিংসতায় ফারুক (৩৫) নামে এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। অপর একটি ভোট কেন্দ্রে মহড়া দেয়ার সময় অস্ত্র-গুলিসহ ছাত্রলীগের তিনকর্মীকে আটক করেছে বিজিবি। সহিংসতার ঘটনা ঘটেছে পটিয়া ও মীরসরাইয়েও। এর আগে গত ২৮ মে পঞ্চম ধাপে চট্টগ্রামের ৪৭ ইউনিয়নে নির্বাচনে পটিয়া উপজেলায় তিনজন নিহত হয়েছিল। রাঙ্গুনিয়া ও বোয়ালখালীতেও ঘটেছিল সংঘর্ষের ঘটনা।
এসব ঘটনায় সুষ্ঠু ভোট নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। জনমনে উদ্বেগ কাজ করছে, আতঙ্কে রয়েছেন প্রার্থী ও ভোটাররা। সাতকানিয়ায় গতকাল শুক্রবার সকাল থেকে বহিরাগত সন্ত্রাসীরা মহড়া দিচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী, বিএনপি, এলডিপি ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।
নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, শনিবার ষষ্ঠ ও শেষ ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চট্টগ্রামের ৫ উপজেলায় ৪১টি ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আনোয়ারা উপজেলার ১০টি, পটিয়া উপজেলায় ১টি, সাতকানিয়া উপজেলার ১৭, লোহাগাড়া উপজেলার ৬ এবং মীরসরাই উপজেলার ৭ টি ইউনিয়নে ভোট গ্রহণ চলছে।
এদিকে শুক্রবার রাতেই ভোটগ্রহণের সকল প্রস্তুতি শেষ করেছে নির্বাচন কমিশন। শুক্রবার বিকেল থেকে পুলিশ প্রহরায় কেন্দ্রে কেন্দ্রে প্রিসাইডিং অফিসার ও পোলিং অফিসাররা নির্বাচনী সামগ্রী নিয়ে অবস্থান নেন। এর আগে বৃহস্পতিবার মধ্য রাত থেকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় মাঠে নেমেছে বিজিবি, র‌্যার্ব, নির্বাহী ও জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট।
চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বিশেষ) মোহাম্মদ আবদুল আওয়াল বলেন, ‘বৃহস্পতিবার থেকে নির্বাচনী এলাকায় মাঠে নেমেছেন আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। নির্বাচনের একদিন পর পর্যন্ত তারা আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় মাঠে থাকবেন। প্রতিটি ভোটকেন্দ্রে একজন অফিসারের নেতৃত্বে ৫ জন পুলিশ সদস্যসহ আনসার মিলে ১৫ থেকে ১৮ জন সদস্য মোতায়েন থাকবেন। অতি গুরুত্বপূর্ণ (ঝুঁকিপূর্ণ) ভোটকেন্দ্রগুলোতে একজন অফিসারের নেতৃত্বে ছয়জন পুলিশ থাকবে। এছাড়াও মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স টহলে থাকবে।’
আনোয়ারা :
উপজেলার ১১টি ইউনিয়নের মধ্যে ১০ ইউনিয়নে নির্বাচন চলছে আজ। উপজেলার ১০ নম্বর জুঁইদণ্ডী ইউনিয়নের নির্বাচন হাইকোর্টের নির্দেশে স্থগিত হয়ে গেছে। ১০ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও স্বতন্ত্রসহ মোট ৪৬ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ৪৫ জন ও সাধারণ পুরুষ সদস্য পদে ৩৫০ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।
নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, আজ ১ লাখ ৮৩ হাজার ৫৩০ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। ১০ ইউনিয়নে মোট কেন্দ্রের সংখ্যা ৯১টি। মোট বুথের সংখ্যা ৫১৬টি। প্রিসাইডিং অফিসার ৯১ জন, সহকারী প্রিসাইডিং অফিসার ৫১৬ জন এবং ১ হাজার ৩২ জন পোলিং অফিসার কাজ করছেন।
আনোয়ারার ১ নম্বর বৈরাগ ইউনিয়ন, ২ নম্বর বারাসাত ইউনিয়ন ও ৭ নম্বর আনোয়ারা সদর ইউনিয়নের ১৫টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ বলে চিহ্নিত করা হয়েছে।
উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা আশরাফুল আলম বলেন, ‘নিরপেক্ষ নির্বাচন করতে পুলিশ, র্যাব, বিজিবিসহ আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছে। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে ১৮ জন পুলিশ ও আনসার সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে থাকবেন বিজিবি, র‌্যার্ব সদস্যরা।’
সাতকানিয়া :
উপজেলার ১৭টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে আজ। উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্র জানায়, এবারে ১৭ টি ইউনিয়নের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৬৪ জন, সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে ১২৩ ও সাধারণ সদস্য পদে ৫৫৭ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে সোনাকানিয়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হাজী নুর আহমদ বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।
স্থানীয় সূত্র জানায়, নির্বাচন নিয়ে উপজেলার সবাই আতঙ্কগ্রস্ত ভোটাররা হয়ে পড়েছেন। কেঁওচিয়া, ছদাহা, কালিয়াইশ, ঢেমশা, সাতকানিয়া সদরসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে বহিরাগত সন্ত্রাসীরা কেন্দ্রের আশপাশে মহড়া দিচ্ছে এবং ভোটারদের হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।
তবে সাতকানিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ উল্ল্যাহ জানান, ‘অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষভাবে ভোট গ্রহণের লক্ষ্যে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। কেউ কোথাও কোন ধরনের ঝামেলার চেষ্টা করলে বিন্দুমাত্র ছাড় দেয়া হবে না।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here