দাড়ির জন্য গিনেস বুকে স্থান করে নিয়েছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত নারী

0
201

পি নিউজ ডেস্ক: দাড়ির জন্য গিনেস বুকে স্থান করে নিয়েছেন ভারতীয় বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ শিখ মডেল হারনাম কাউর।

তিনি এখন বিশ্বের সবচেয়ে কম বয়সী মডেল, যার মুখভর্তি ছয় ইঞ্চি লম্বা দাড়ি রয়েছে।

২৪ বছর ২৮২তম দিনে তিনি এই রেকর্ডের স্বীকৃতি পান।

দক্ষিণ-পশ্চিম ইংল্যান্ডের বার্কশায়ারের ২৪ বছর বয়সী বডি পজিটিভের এই ক্যাম্পেনার গিনেস বুকে অন্তর্ভুক্তিকে ‘অসাধারণ মর্যাদাকর’ বলে মন্তব্য করেছেন।

তিনি বলেছেন, আমার মুখের এই দাড়ি আলাদা কিছু নয়। শরীরেরই একটি অংশে পরিণত হয়েছে। এটা আমার শক্তি ও আত্মবিশ্বাসের একটা অংশ।
হারনাম বলেন, মানুষের কাছে এগুলো দাড়ি চুলের মতোই। কিন্তু আমার কাছে তার চেয়েও বেশি। আমি চুল রাখি বিশ্বকে নারীর ভিন্নতা, আত্মবিশ্বাস, বৈচিত্র ও শক্তির রূপ দেখাতে।

তিনি আরও বলেন, এখন সবাই আমার নামের আগে যোগ করবে গিনেস রেকর্ড কন্যা। নারীর ক্ষমতায়নে এটি আরেক মাইলফলক।

হারনান কাউর পলিসটিক ওভারি সিনড্রমে আক্রান্ত। এর ফলে হরমোনজনিত কারণে তার মুখমণ্ডলে অবাঞ্চিত লোম দেখা দেয়।

মাত্র ১১ বছর বয়সে তার এই সমস্যা শুরু হয়। কয়েক বছর এ সমস্যা লুকিয়ে রাখার চেষ্টা করেন। কিন্তু মাসে তিনবার এগুলো পরিষ্কার করা তার জন্য কষ্টকর ছিল।
তাই একটা সময় হারনাম দাড়িতেই অভ্যস্ত হওয়ার চেষ্টা করেন। এরপর হারনাম শিখ ধর্মে দীক্ষা নেন। এ ধর্মে চুল দাড়ি কাটা নিষিদ্ধ। তাই তিনি আর কখনও দাড়ি কাটেননি।

নিজের মুখের এই দাড়ি নিয়ে যথেষ্টই সুখী হারনাম। বিভিন্ন সময় তার প্রমাণও তিনি দিয়েছেন।

এই দাড়ি নিয়েই বিভিন্ন সাজে মডেলিং করেছেন। দাড়িওয়ালা কোনো নারী হিসেবে ২০১৬ সালের মার্চে লন্ডন ফ্যাশন উইকে তিনিই প্রথমবার শিখদের পাগড়ি পরে রানওয়েতে হেঁটেছিলেন।

এছাড়া হারনাম লন্ডনভিত্তিক শহুরে কনে ফটোগ্রাফিতে মডেলও হয়েছেন। এতে বেশ কয়েকটি ছবিতে ভিন্ন ভিন্ন সাজে কনে রূপে তাকে দেখা যায়। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছবিগুলো প্রচার হওয়ার পর ব্যাপক সাড়া ফেলে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here