নবী ও ওলী-গণের নিকট সাহায্য চাওয়ার ব্যাপারে কুরআন সুন্নাহ কি বলে? পর্ব-১

0
155

পি নিউজ ডেস্ক:

আমরা দৈনন্দিন জীবনের প্রতি মুহূর্তে অন্যের অর্থাৎ, গায়রুল্লাহ সাহায্য প্রার্থী হয়ে থাকি। যেমনসন্তান পিতামাতার িকট, প্রজা বাদশাহ বা সরকারের নিকট, মাদ্রাসা মসজিদের চাঁদার জন্য জনসাধারনের নিকট সাহায্য প্রার্থী হই।এটা শিরক্ নয়। এরা সবাই গায়রুল্লাহ্। হযরত ঈসা (আঃ) যিনি নবী ছিলেন, তিনিও তাঁর অনুগত হাওয়ারীগণ (গায়রুল্লাহ্) এর কাছে সাহায্য চেয়েছেনঃ

অর্থাৎ, “মরিয়ম তনয় ঈসা (আঃ) হাওয়ারীগণকে বললেন, আল্লাহর রাস্তায় কারা আমার সাহায্যকারী? হাওয়ারীগণ বললেন, আমরা আল্লাহর রাস্তায় আপনার সাহায্যকারী।” (সূরাআলেইমরান : আয়াত৫২) একজন নবীর পক্ষে কী তাহলে শিরক্ করা সম্ভব? (নাউযুবিল্লাহ্)

বস্তুত তার কাছেই চাওয়া যায় যিনি দেয়ার বা দান করার ক্ষমতা রাখেন। ক্ষমতা দুই প্রকার – ‘জাতিগত বা স্বত্ত্বাগতযা একমাত্র আল্লাহ্পাকের জন্য খাস এবংআতাই বা আল্লাহ্ কর্তৃক প্রদত্ত’ – যা আল্লাহ্ পাক তাঁর সকল বান্দাকে প্রদান করে থাকেন। এটা আবার দুপ্রকার – ‘সাধারণ ক্ষমতা’ – যা সকল বান্দাকে আল্লাহ্পাক কমবেশী দিয়ে থাকেন, এবং বিশেষ ক্ষমতা (রুহানী) – যা আল্লাহ্পাক তাঁর খাস বান্দাদের মধ্যে যাকে ইচ্ছা দিয়ে থাকেন। যেমন – ‘নবীওলীআল্লাহ্গণ এরশাদ হচ্ছেঃ

অর্থাৎ, “তিনি (আল্লাহ্) নিজ অনুগ্রহ প্রদানের জন্য যাকে ইচ্ছা বেছে নেন।” (সূরাআল্বাক্বারাহ : আয়াত১০৫)

আরো এরশাদ হচ্ছেঃ

অর্থাৎ, “আল্লাহ্ যাকে ইচ্ছা স্বীয় ক্ষমতা বা কর্তৃত্ব বা প্রভুত্ব দান করে থাকেন। আল্লাহ্ প্রাচুর্যময় প্রজ্ঞাময়।” (বলতে প্রভুত্ব, কর্তৃত্ব মালিকানা ইত্যাদি বুঝায়) (সূরাআল্বাক্বারাহ : আয়াত২৪৭)

হযরত ঈসা (আঃ) আল্লাহ্ প্রদত্ত ক্ষমতা বলে জন্মান্ধ কুষ্ঠ রোগীকে আরোগ্য এবং মুর্দাকে জিন্দা করতেন। এরশাদ হচ্ছেঃ

আমি (ঈসা) জন্মান্ধ কুষ্ঠ রোগীকে আরোগ্য করি এবং মুর্দাকে জিন্দা করি

আল্লাহর ইচ্ছায়।” (সূরাআলেইমরান : আয়াত৪৯)

হযরত নবী করিম (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম)- আল্লাহ্ প্রদত্ত এহেন ঐশ্বরিক বা রুহানী শক্তিবলে যাকে ইচ্ছা এবং যা ইচ্ছা দান করেন এবং ভবিষ্যতেও করবেন অর্থাৎ, দান করার ক্ষমতা রাখেন। এরশাদ হচ্ছেঃ

ইহা কতই না ভালো হতো যদি তারা আল্লাহ্ তাঁর রাসূল তাদেরকে যা দান করেছেন, তাতে সন্তুষ্ট থাকতো এবং বলতআল্লাহ্ নিজ অনুগ্রহে আমাদের দান করবেন এবং তাঁর রাসূলও। আমরা আল্লাহর প্রতি আসক্ত।” (সূরাআত্তাওবাহ : আয়াত৫৯)

আরো এরশাদ হচ্ছেঃ

আল্লাহ্ তাঁর রাসূল নিজ অনুগ্রহে তাদের (মোমিন) কে ধনশালী করেছেন, এটাইতো তাদেরকে (কাফেরদের) ব্যথিত করেছে।” (সূরাআত্তাওবাহ : আয়াত৭৪)

চলবে——

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here