খাদ্য নিরাপত্তায় আরও ২০ কোটি ২০ লাখ ডলার দিচ্ছে বিশ্ব ব্যাংক

0
67

পিনিউজ ডেস্ক:

খাদ্য নিরাপত্তা জোরদারে চলমান একটি প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশকে আরও ২০ কোটি ২০ লাখ ডলার ঋণ দিচ্ছে বিশ্ব ব্যাংক।

শুক্রবার আন্তর্জাতিক ঋণদাতা সংস্থাটির নির্বাহী পরিচালকরা এই ঋণের অনুমোদন দেন বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

চার কোটি ৫০ লাখ পরিবারের জন্য বাংলাদেশের জাতীয় কৌশলগত শস্য মজুদ ক্ষমতা ৫ লাখ ৩৫ হাজার ৫০০ টন বাড়ানোর লক্ষ্যে ‘মডার্ন ফুড স্টোরেজ ফ্যাসিলিটিজ প্রজেক্টের’ বাড়তি এই অর্থায়ন করছে বিশ্ব ব্যাংক।

জলাবায়ু সৃষ্ট দুর্যোগ বা চলমান কোভিড-১৯ মহামারীর মতো সঙ্কটময় পরিস্থিতির মতো কঠিন সময়ে খাদ্য অনিরাপত্তা মোকাবিলায় বাংলাদেশকে সহায়তার জন্য এই প্রকল্প নেওয়া হয়েছিল।

এর আওতায় আটটি জেলায় চাল ও গম সংরক্ষণের জন্য সরকারি উদ্যোগে আটটি আধুনিক মানের স্টিলের সাইলো কমপ্লেক্স নির্মাণে বাংলাদেশকে সহায়তা দেওয়া হবে।

আশুগঞ্জ, মধুপুর ও ময়মনসিংহে চলমান নির্মাণকাজের বাইরে বাড়তি এই অর্থ দিয়ে ঢাকা, নারায়ণগঞ্জ ও বরিশালে চালের সাইলো এবং চট্টগ্রাম ও মহেশ্বরপাশায় গমের সাইলো নির্মাণ করা হবে।

বাড়তি এই অর্থে পরিবারগুলোর জন্য দুর্যোগপরবর্তী চাহিদা মেটাতে শস্যের মজুদ বাড়ানো এবং খাদ্য মজুদ ও বাজার নজরদারিতে অনলাইন ব্যবস্থা (এফএসএমএমএস) চালুর মাধ্যমে খাদ্য মজুদ ব্যবস্থাপনার দক্ষতার উন্নয়ন করা হবে।

এই প্রকল্প সাইলো পরিচালনা ও ব্যবস্থাপনায় বিশেষ করে নারীসহ সবার জন্য নতুন চাকরির সুযোগ সৃষ্টি করবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়ছে।

বাংলাদেশ ও ভুটানে বিশ্ব ব্যাংকের ভারপ্রাপ্ত কান্ট্রি ডিরেক্টর মোহাম্মদ আনিস বলেন, বাংলাদেশের প্রায় ৮০ শতাংশ মানুষ গ্রামে থাকেন, যেখানে জলবায়ু প্রতিনিয়ত তাদের জীবনযাত্রা, কল্যাণ ও খাদ্য নিরাপত্তায় ঝুঁকি তৈরি করছে।

“দক্ষ বিতরণ ব্যবস্থাসহ এই আধুনিক খাদ্য সংরক্ষণ ব্যবস্থা কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগের পর বা কোভিড-১৯ মহামারীর মতো চলমান কোনো সঙ্কটের মধ্যে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিতে সহায়তা করবে।”

প্রকল্পটির আওতায় এরই মধ্যে বায়ু ও পানি নিরোধক ফুড কন্টেইনার তৈরি করে দুর্যোগপ্রবণ উপকূলীয় এলাকাগুলোর ৫ লাখ দরিদ্র কৃষক ও নারীপ্রধান নাজুক পরিবারের মধ্যে বিতরণ করা হয়েছে।