পেঁয়াজ আমদানিতে শুল্ক প্রত্যাহার করে প্রজ্ঞাপন জারি

0
35
১৫ বছর পর পাকিস্তান থেকে পেঁয়াজ আসছে

পেঁয়াজ আমদানিতে আরোপিত ৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহার করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২২ সেপ্টেম্বর) বিকেলে এই প্রজ্ঞাপন জারি করা হয় বলে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) সূত্রে জানা গেছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, কাস্টমস অ্যাক্ট ১৯৬৯-এর প্রদত্ত ক্ষমতাবলে সরকার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সহিত পরামর্শক্রমে জনস্বার্থে ফার্স্ট শিডিউলভুক্ত পণ্যসমূহের মধ্যে আমদানি শুল্ক অব্যাহতি প্রদান করলো। অবিলম্বে এটি কার্যকর হবে, যা ২০২১ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত বলবৎ থাকবে।

এর আগে রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) পেঁয়াজ আমদানিতে আরোপিত ৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে বলে জানায় অর্থ মন্ত্রণালয়।

গত ৭ সেপ্টেম্বর পেঁয়াজ আমদানির ওপর আরোপিত ৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহারের অনুরোধ জানিয়ে এনবিআরকে চিঠি দেয় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। সেই চিঠিতে বলা হয়, পেঁয়াজ আংশিক আমদানি নির্ভর একটি নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য। নিকট অতীতে এই পণ্যটির বাজার বেশ কয়েকবার অস্থিতিশীল হয়েছে।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ‘পেঁয়াজের মূল্য সাম্প্রতিক সময়ে অনেকটা বৃদ্ধি পেয়েছে। এছাড়া, সম্প্রতি ভারত থেকে পেঁয়াজ রপ্তানি নিষিদ্ধের কারণে বাজারে পেঁয়াজের মূল্য ঊর্ধ্বমুখী। পর্যালোচনায় দেখা যায় যে, দেশীয় পেঁয়াজ চাষিদের ন্যায্য মূল্য প্রাপ্তি নিশ্চিতকরণ, পেঁয়াজ চাষে উৎসাহ প্রদান এবং আমদানির ওপর নির্ভরশীলতা হ্রাসের লক্ষ্যে চলতি ২০২০-২১ অর্থবছরে পেঁয়াজ আমদানিতে ৫ শতাংশ আমদানি শুল্ক আরোপ করা হয়।

২০২১ পর্যন্ত সময়ে পেঁয়াজের ওপর আরোপিত ৫ শতাংশ আমদানি শুল্ক প্রত্যাহারের করা হয়েছে।

৫ শতাংশ শুল্ক প্রত্যাহারের ফলে আমদানিকারকদের সুবিধা হবে এবং তারা পেঁয়াজ আমদানিতে উৎসাহী হবেন বলে জানিয়েছে বাণিজ্য এবং অর্থ মন্ত্রণালয়।